একটি অবহেলিত ভালোবাসা!

মেয়ে: রাগ না অভিমান?
ছেলে: কোন টাই না!
মেয়ে: কেন?
ছেলে: তোমার প্রতি আমার কোন ফিলিংস নেই, না ভালোবাসা না ঘৃণা!
মেয়ে: একদিন না তুমি বলেছিলে আমাকে ভালোবাসো, তোমার জীবনের চেয়ে বেশি!
আমাকে কখনো ছেড়ে যাবে না!
তাহলে আজ কেন ছেড়ে গেলে?
ছেলে: এই প্রশ্নের উত্তর আমি তোমায় কেন দিবো? সেগুলো সব ছিলো আবেগের কথা!
মেয়ে: তাহলে আমার জীবন টা নিয়ে কেন খেলা করলে, কেন আমাকে ভালোবাসার স্বপ্ন দেখালে!
ছেলে: তোমার প্রতি আমার ভালোলাগা ছিলো, সেটা চলে গেছে! তোমার প্রতি আমার কোন ফিলিংস নেই আর, তুমি এখন আসতে পারো!
মেয়ে: খুব সহজেই বলে দিলে? পারলে তুমি বলতে, একটু কষ্ট হলো না! ওকে আমি চলে গেলাম তোমার জীবন থেকে, শত কষ্ট হলেও
তোমায় ভুলে যাবো! ভালো থেকো!

মেয়েটা বলেই চলে গেলো, কিন্ত পিছন ফিরে একটি বার ও ফিরে তাকালো না!
ছেলেটির অঝোরে কাঁন্নাটা শুধু হৃদয়েই কেঁদেছিলো,  চোখে নয়!
ছেলেটি ছোটতে একটা এক্সিডেন্টে একটি কিডনি ড্যামেজ হয়ে যায়!! ছেলেটির পরিবার গরীব থাকাই,  চিকিৎসা না করাতে পারাই,
দিতীয় কিডনি টিও সুষ্ঠ নেই।
আর খুব বেশি দিন সময় তার নেই!
তাই সে মেয়েটিকে সারাজিবন কাঁদতে দেখতে চাইনি!  ঘৃণা করেই যেনো সে ভুলতে পারে সবকিছু।
তাই সুখের স্মতৃি গুলো ঘৃণাই ঢেকে দিয়া ছাড়া আর কোন পথ ছিলো না!
ছেলেটি আকাশের দিকে তাকিয়ে!
একটু মুচকি হেসে বললো!

সে সুখে থাকুক!