গল্পঃ বন্ধু যখন বাবা । পর্ব-২য়

সেদিন রাতে আর ছাদে যাইনি,বারান্দায়ো যাওয়া হয়নি।
বেশি ক্লান্ত ছিলাম তাই ঘুমিয়ে পড়ি তাড়াতাড়ি।পরেরদিন
সকালে ঘুম ভাঙ্গলো বাবার ঝাড়িতে।ঘুম থেকে
উঠে আমি অবাক।
মেয়েটা নাকি বাসায় এসেছে পায়েস নিয়ে।বাবাকে
নাকি বলেছে তার বোবা ছেলে গতকাল পায়েস
খাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে রাতে।বাবা যখন বলল
তার ছেলে বোবা নয় তখন নাকি মেয়েটা এমন ভাব
নিয়েছে যে সে কিছুই জানতোনা।মেয়েটা
এখনো বসার রুমে বসে আছে।
বাবা বলল উঠে ফ্রেশ হয়ে সেখানে আসতে।
আমি তাড়াতাড়ি ফ্রেশ হয়ে গেলাম।মেয়েটার
সামনে যাওয়ার পর দেখলাম একটা ব্লু থ্রী-পিছ
পড়ে আছে,চোখে চশ্মা।মেয়েটা আমাকে
দেখে টানা প্রশ্ন করতে শুরু করল,আপনি না
বোবা? আপনি না আমাকে সেদিন বললেন আপনি
বোবা? আপনার বাবাতো বলে আপনি নাকি কথা
বলতে পারেন! আমারতো বিশ্বাসই হচ্ছেনা।
আমি বললাম আরেহ আপনি মিথ্যে বলছেন
কেনো? আপনিতো গতকালও দেখেছেন যে
আমি কথা বলতেছিলাম।তো এই অভিনয়ের মানে কি?
মেয়েটা চোখ বড় বড় করে বললো,বাহ আপনি
কথা বলতে পারেন দেখে অনেক ভালো
লাগছে।প্রতিবেশী হওয়াতে ভাবলাম নিজের হাতে
যখন রান্না করেছি তো কিছুটা দিয়ে আসি।আজ না
আসলে হয়তো কখনো জানতেই পারতামনা যে
আপনি কথা বলতে পারেন।
আমিযে মফিজ হয়ে গেছি তা বুঝতে বাকি নেই।
বাবাকে আমি কিছু বলার আগে বাবা মেয়ের পুরো
বায়োডাটা নিয়ে নিলো।মেয়ে অনার্স থার্ড ইয়ারে
ইকোনোমিকস নিয়ে পড়ছে।বাবা মা দুজনের
একমাত্র মেয়ে।
.
বাবার সাথে বেশ কিছুক্ষণ মধুর আলাপ করছিলো।
আমি শুধু তাকিয়ে ছিলাম।আর বাবা আমার নামে কখনো
কারো কাছে যা বলেনাই মেয়েটার কাছে তা
বলতেছে।মেয়েটা না আসলে জানতেই পারতামনা
যে আমি এতটা ভদ্র!
মেয়েটাও বাবার কথাতে তাল দিয়ে যেতে
লাগলো আর আমি শুধু দেখতে লাগলাম।
মেয়েটা চলে গেলে বাবা বলল,তুইতো ফাঁসছিস।
আমি বললাম, কিভাবে?
বাবা বলল,এই মেয়ের সাহস আছে বলা লাগে।
তোকে টাইট দিতে এইরকম একটা মেয়েই
দরকার।বিয়ে করে ফেল। নাকি?
আমি বললাম, বাবা পাগল হইছো নাকি? দুদিনের পরিচয়ে
কি থেকে কোথায় গেলে?
বাবা কিছু না বলে হাসি দিয়ে রুমে চলে গেলো।
মাথার চুলগুলোতে হাত দিয়ে আমিও রুমে চলে
গেলাম।যাওয়ার আগে মেয়েটার রেখে যাওয়া
পায়েস চোখে পড়লো।প্রথমে এড়িয়ে
গেলেও অনেকদিন হইছে পায়েস খাইনি খেয়াল
হতেই একচামচ খেলাম।স্বাদ ছিলো অনেক তাই
পুরোটাই খেয়ে ফেললাম সাথে সাথে। তারপর
জোরে জোরে বাবাকে উদ্দেশ্য করে
বললাম বাবা পায়েস পুরোটা ফেলে দিয়েছি।বাটি
ধুয়ে রাখছি মেয়েটা আবার আসলে দিয়ে দিও।
বাবা তখন রুম থেকেই বলল,পায়েস কি পেটে ফেলেছিস?

আজকের পর্ব শেষ,,,,,