গল্পঃএকটি মেয়ে ও চাওয়া পাওয়া

প্রত্যকটি মেয়ে চায়, পড়ন্ত বিকেলে যখন কোন ও পার্কে অথবা লেকের পাশে বসে থাকবে আর হটাত করে এক উড়ন্ত বাতাস এসে মেয়েটির চুল মুখের সামনে এসে পরবে, ছেলেটি আস্তে করে চুলগুলিকে ঠিক করে দিয়ে বলবে ” হারামি বাতাস আমার বউরে ভালা কইরা দেখতে ও দেয়না”

প্রত্যকটি মেয়ে চায়, যখন সে আইসক্রিম খাবে আর বলবে আইসক্রিম আমার জান আর সাথে সাথে ছেলে অভিমান করে বলবে ” আচ্ছা থাকো তোমার জান নিয়ে আমি তো তোমার কেউ না আমি যাই”
প্রত্যকটি মেয়ে চায়, তার ভালোবাসার মানুষটি বলুক যে আমার প্রিয় রঙের একটি ড্রেস পড়ে আসবে?
প্রত্যকটি মেয়ে চায়, তার ভালোবাসার মানুষটি বলুক যে ” ম্যাডাম কালকের বিকেল টা কি শুধু আমার জন্য বরাদ্ধ করা যাবে? ”
প্রত্যকটি মেয়ে চায়, কোন এক বিকেলে দুজনে ফুচকা খেতে খেতে হটাত করে ভালোবাসার মানুষটি বলে উঠুক ” চলো পালাইয়া যাই”
প্রত্যকটি মেয়ে চায়, এক ঝুম বৃষ্টি তে তার হাতটি তার ভালোবাসার মানুষ ধরে তাকে নিয়ে ঝুম বৃষ্টি তে ভিজবে। সেই বৃষ্টিতে ভিজার পরে চটকে যাওয়া কাজল দেখে বলবে ” তোমার চোখে কাজল আসলেই মানায়”
প্রত্যকটি মেয়ে চায়, বারবার না শুধু একবার তার চোখের দিকে তাকিয়ে ভালোবাসার মানুষটি বলবে ” আমি তোমাকে ভালোবাসি ”
প্রত্যকটি মেয়ে চায়, তার ভালোবাসার মানুষ এসে বলুক ” আমি সৃষ্টিকর্তা এর কাছে চেয়েছি যেন আমি তোমায় নিয়ে আমার পরিবার নিয়ে তোমার পরিবার নিয়ে সুখে থাকতে পারি। ”
উহু অনেক চাওয়া পাওয়া যে এতকিছু বলে তো শেষ করতে পারবো না। শুধু এতটুকু বলতে পারবো এই সামান্য চাওয়া পাওয়া যদি ভালোবাসার মানুষটি পূরণ না করতে পারে তাহলে তারা কোন ও মেয়েকেই ডিজারব করেনা।
বিদ্রঃ কিছু মাইয়া টাকা ও চায়। এর মানে সবাই এক নয়। একশ এর মাঝে ৯৫ ভাগ মেয়েরাই উপরোক্ত জিনিশ গুলি চায়, মাঝে মাঝে পাবেনা যখন বুঝে ফেলে তখন এসব চাওয়া পাওয়া খুন করে ফেলে। কিন্তু ভাইয়া একটু চেষ্টা করবেন আপনার ভালোবাসার মানুষটিকে এই সামান্য জিনিশ দিয়ে খুশী করতে। কথা দিচ্ছি টাকা দিয়ে ও তাকে এই সুখ টা দিতে পারবেন না যেটা আপনার কিছু সময় আর রেসপন্স দিতে পারবে।
ভালোবাসাকে অনুভব করুন। ভালোবাসার সুন্দর একটি জিনিশ। অনুভুতির জিনিশ। অনুভব করুন দেখবেন কতো সুন্দর।