Breaking News

গল্প : পিচ্চি বউয়ের পাগলামি । পর্ব -০১

জুঁইকে যখন বিয়ে করি তখন তার বয়স তখন ১৪,,
সম্পর্কে আমার ফুফাতো বোন,,,
আমার দাদীর ইচ্ছায় বিয়েটা হয়েছে,,,
পরিবারের বড় ছেলে হওয়াই আমাকে এই কুরবানির শিকার হতে হয়েছিলো,,,,
ওকে যখন বিয়ে করি আমার বয়স তখন ২৬,,,
বুঝতেই পারছেন দুজন দুই গ্রহের বাসিন্দা,,,,
দাদী ও ছিলো শেষ পর্যায়ে,,,
কোনো রকম হাটতে চলতে পারতো,,,
তাই একদিন বাবা আর ফুফুকে ডেকে এই কুরবানির ব্যবস্থা  করে,,,,
দাদীর এক কথা নাতবউ দেখে যাবে,,,,,
আর জুঁইয়ের সাথেই আমার বিয়ে দিবে,,,,
.
তাই তো এক প্রকার জোর করেই জুঁইয়ের সাথে আমার বিয়েটা হয়েছিল,,,
অনিচ্ছা সত্বে দাদীর জোড়া-জোড়িতে বাসর ঘরে ঢুকতে হয়েছিলো,,,,
বাসর ঘরে ঢুকতেই রোবটের মত বিছানা থেকে নেমে সালাম করা শুরু করলো,,,,
করছে তো করছেই,,,,
আমি কিছু বলছি না,,,,
প্রায় দুই মিনিট করার পর ধমক দিয়ে বললাম,,,,
আমি : কিরে কি করিস?
জুঁই : সালাম করছি,,,,
আমি : তা তো দেখতেই পারছি এতক্ষণ ধরে সালাম করতে হয়???
জুঁই : নানী তো বলছে আপনি যখন আমাকে উঠাবেন তখন সালাম করা বাদ দিতে,,,,
(ওর কথা শুনে তো আমার পেট ফেটে হাসি পাচ্ছে)
আমি : তো আর কি কি বলছে তোর নানী?
জুঁই : আরও অনেক কথা বলছে,,,,
আমি : কি কি বলছে? (পেটে হাসি চেপে রেখে)
জুঁই : বলছে আপনার বুকে মাথা রেখে রাতে ঘুমাতে ,,,,
আপনি যদি আমাকে জড়িয়ে ধরেন আমি যেনো বাধা না দেই,,,,
চিৎকার চেচামেচি যেনো না করি,,,,আপ…….( জুঁইয়ের কথা থামিয়ে)
আমি : হইছে এবার থাম,,,, জা বিছানায় গিয়ে বসে পড়,,,
জুঁই : নানী বলছে আমাকে কুলে করে নিয়ে যেতে,,,,,,
আমি : কানের নিচে একটা চটকানি দিয়ে দাত ফেলাই দিমু,,,,
ওরে কুলে করে বিছানায় নিতে হবে? যা বিছানায় যা,
জুঁই : ওওওও এইবার বুচ্ছি নানী কেন চিৎকার করতে না মানা করছে,
আমি : কি বুজছোস?
জুঁই : এই যে আপনি আমাকে থাপ্পর মারবেন আমি ব্যাথা পাবো,,,,
তাই যেন চিৎকার না করি,,,, চিৎকার করলে তো মামা এসে আপনাকে মারবে,,,,,
মনে নাই একদিন আপনি আমাকে মারতেছিলেন আর আমি চিৎকার করতেছিলাম তখন মামা এসে আপনাকে কি দৌড়ানিটা দিছিলো,,, (বলেই ফিকফিক করে হাসতেছে আর বলতেছে)
জুঁই : আপনি মারেন আমি চিৎকার করবো না,,,,,
(ওর কথা শুনে আমি হাসবো না কাদবো ঠিক বুঝতেছি না,)
জুঁই : কি হলো মারেন না হলে কুলে করে বিছানায় নিয়ে যান,,,,
আমি : ওই তোর তো সাহস একদিনেই বেড়ে গেছে, আমার কথার উপর কথা বলিস? যা বিছানায় (ধমক দিয়ে, ও আবার আমায় খুব ভয় পায়,, ভয়ে কাপতে কাপতে বিছানায় গেলো)
আমিও বিছানায় গিয়ে হাতে থাকা একটা জামা ওর হাতে দিলাম,,,,
কিছুদিন আগেই ও আমায় ফোনে বলছিলো ভাইয়া এবার আসার সময় আমার জন্য একটা হলুদ কালারের জামা নিয়ে আসবেন,,,ওটাই আজ দিলাম,,,,
জুঁই : ভাইয়া এটা কি??
আমি : খুলে দেখ,,,,,
জুঁই : ওয়াও অনেক সুন্দর হইছে ভাইয়া, THANK YOU বলেই গালে একটা চুমু দিলো,,,, আর বলছে,,,,
জুঁই : আচ্ছা আপনি এমন কেন?
আমি : কেমন??
জুঁই : এইযে ড্রেসটা এখন দিলেন আগে যদি দিতেন তাহলে এটা পড়েই আসতাম কি শাড়ী পড়াইছে, আমি পরবোই না তারপরেও বলে বিয়েতে শাড়ী পরতে হয়,,,, আচ্ছা ভাইয়া *বিয়ে* কি?
আমি : তোর এতো কিছু জানতে হবে না,,,, শাড়ীটা খুলে এটা পড়ে আয়,,, শাড়ী পরে ঘুমাতে পারবি না,,,,,
জুঁই : আচ্ছা(বলেই শাড়ী খুলতে লাগলো)
আমি : ওই কি করিস?
জুঁই : কেন আপনি না বললেন এটা পরতে? (জামাটা দেখিয়ে দিয়ে)
আমি : বলছি তাই বলে কি এখানে???
জুঁই : কেন কোনো সমস্যা???
আমি : না কোনো সমস্যা নাই,,,, যা বাথরুমে গিয়ে হাত মুখ ধুয়ে ওখান থেকে কাপড় পরে আয়,,,,,
জুঁই : আচ্ছা(বলেই বাথরুমে চলে গেল)
কিছুক্ষণ পর ড্রেসটা পড়ে এসে বলতেছে,,,,,,
জুঁই : ভাইয়া কেমন লাগছে আমাকে?
আমি : হুম সুন্দর লাগতেছে,,,,
জুঁই : মামা মামী কে দেখিয়ে আসি?
আমি : না এত রাতে যেতে হবে না,,,, আর আজ থেকে মা বাবা কে আর মামা মামী ডাকবি না,
জুঁই : কেন? কি ডাকবো,, আঙ্কেল আন্টি?
আমি : না, মা বাবা বলেই ডাকবি, বিয়ের পর সব মেয়েরাই তার স্বামীর মা বাবাকে মা বাবা বলেই ডাকে,,,,,
জুঁই : যাহ আমি পারবো না, আমার লজ্জা লাগে,
আমি : এই দিকে আয়,,,,
জুঁই : কেন মারবেন?
আমি : না আয়, শোন তোকে কিছু কথা বলি, বিয়ের পর মেয়েদের কিছু জিনিস পরিবর্তন করতে হয়, তার স্বামীর বাবা মাকে মা বাবাই ডাকতে হয়, চঞ্চলতা কমাতে হয়, আর কথা কম বলতে হয়,,,, মনে থাকবে???
জুঁই : হুম থাকবে,,,,,
আমি : ঠিক আছে এখন ঘুমিয়ে পড়,,,বলেই আমি ও শুয়ে পরলাম,,,,
“”””জুঁই শুয়ে পরলো, কিন্তু বালিশে না, আমার বুকেই”””
আমি : কিরে খাটে কি বালিশের অভাব হইছে?
জুঁই : নানী তো বলছে এভাবে ঘুমাতে,,,,,
(জুঁইয়ের কান্ড কারখানা দেখে আর কিছু বললাম না)
সকালে ঘুম থেকে উঠে ফজরের নামাজ পড়তে গেলাম,,,,, নামাজ পড়ে হাটতে হাটতে বাজারে গেলাম চা খেতে,,,, চা খেয়ে বাড়ি এসে দেখি সবাই কাউকে ডাকাডাকি  করতেছে,, আমি বুঝতে পারলাম না,,, আমি কিছু জিগ্যেস না করে রুমে গেলাম,, কিছুক্ষন পর দাদী আসলো, এসেই জুঁইকে খুজা শুরু করলো, আমায় বলতেছে,,,,
দাদী : কি নাতি আমার নাতনীটারে কই রাখলা দেখি একটু কেমন হলো,,,
আমি : তোমার নাতনী আগে যেমন ছিলো তেমনি আছে,,,
দাদী : তা কই আমার নাতবউ টা?
আমি : তোমার নাতবউকে কি আমি পকেটে করে নিয়ে বসে আছি যে আমায় জিগ্যেস  করতেছো?
দাদী  : কি বলিস, ও তো বের হই নাই আমরা তো মনে করলাম তুই রুমে তাই এদিকে আসি নাই,,,,
আমি : কি বলো আমি তো ওকে ঘরে রেখেই নামাজে গেলাম,,,,,
***তারপর সারা বাড়িতে ওকে খোজার ধুম পরে গেল, চিৎকার করে ডেকে ও কোনো পাত্তা নেই,,,কোথাও পাওয়া গেলো না”””
আমার মনে হঠাৎ সন্দেহ জাগলো,,,, মনে মনে ভাবতেছি,,, ওকি তাহলে???
যেই ভাবা সেই কাজ দৌড়িয়ে পুকুর ঘাটের আম বাগানে গেলাম, যা ভাবছিলাম তাই, গাছ বান্দর গাছে বসে আম খাচ্ছে,
আমি : কিরে ওখানে কি করিস?
জুঁই : ভাইয়া আম খাচ্ছি,,, খাবেন?
আমি : দাড়া তোর আম খাওয়া বের করতেছি, আজ তোর পা ভেঙে দিবো, তোরে যে এত মানুষ ডাকতেছে শুনিস নাই?(বলেই লাঠি খোজা শুরু করলাম)
জুঁই : শুনছি তো,,,,
আমি : শুনছিস কথা বলিসনি কেন?
জুঁই : আপনিই না কাল বললেন কথা কম বলতে।
কেমন হয়েছে জানাতে কিন্তু ভুলবেন না,?
চলবে…

No comments