Breaking News

অতিরিক্ত চাওয়া । পর্ব - ০৪

অতপর, কি আর করার? স্যার যাচ্ছে আর আমি তার পেছন পেছন। মেবি আমি স্যারের বুকের একটু নিঁচে পরবো লম্বায়। বুঝাই যাচ্ছে, কি লম্বা স্যারটা। স্যার আমায়, অফিস রূমে নিয়ে যাচ্ছে.. যেখানে সকল স্যার ম্যাডাম বসে আড্ডা দিচ্ছেন। আমি কিছু বলতেও পারছি না? যে ওখানে কেনো নিচ্ছেন...?

স্যার অফিস রূমে ঢুকলেন আমি গেটের কাছেই দাঁড়িয়ে। স্যার আমার সামনে এসে বললেন...
" হোয়াটস' রং? কাম!
আমি পিছুপিছু যেতে লাগলাম। রূমে প্রবেশ করতেই সকলকে সালাম দিলাম!
বড় এক ট্যাবিলের চেয়ারে বসে স্যারেররা ব্রেকফাস্ট করছেন।
অন্যএকটি ট্যাবিলে স্যার একটি বক্স রেখে সামনে বসলেন আর আমায় দ্বিতীয় পাশে বসতে ইশারা করলেন...
আমি মাথা নিচু করে বসলাম। স্যার তার হাতের টিফিন বক্স আমার দিক দিয়ে বললেন...
" পুরো ফিনিস করো....!
আর আমার হাতের টিফিন বক্স নিয়ে খুলে খেতে শুরু করলেন।
আশেপাশের টিচাররা আড়চোখে তাকাচ্ছেন। মরিয়ম ম্যাডাম তো জিজ্ঞাস করেই বসলেন...
" তৃষ্ণা স্যার... বেলিকে এখানে আনলেন যে?
স্যার খেতে খেতেই শান্ত গলায় জবাব দিলেন....
" খেতে চাচ্ছিলো না!

কেউ আর কিছু বলল না। আমি বক্স খুলছিলাম না, দেখে স্যার আবারো খেতে খেতে বললেন...
" খাচ্ছো না যে..?
আমি নিম্ন স্বরে বললাম.." স্যার আমি ক্যান্টিন থেকে খেয়ে নিতে পারতাম!
" চুপচাপ খেতে থাকো!
ভয় পেলাম স্যারের এতো ভাড়ি আওয়াজে। কবে জেনো আমি মাড়াই যাই হার্টফ্যাল করে!
আমি বক্স খুলে দেখি...বিরিয়ানী। আমায় আর পায় কে? মন খুলে খেতে শুরু করলাম।
আশেপাশে কি হচ্ছে, না হচ্ছে দেখার টাইম নেই। হঠাৎ তালুতে উঠে গেলো খাবার...!
স্যার তো চিল্লিয়ে উঠলো....

" ইউ... [ তাড়াতাড়ি পানির বটেলের মুক্ষা খুলে এগিয়ে দিলো আমি ডগডগ করে খেয়ে ফেললাম।
খাবার তো কেউ নিচ্ছে না? ধীরে ধীরে খাও। ঠিকাছো?
" জি...!
আমি আবারো খেতে শুরু করলাম। স্যারের দিক তাকাতেই দেখলাম স্যার আমায় দেখছিলেন মে বি।
আমি তাকাতেই স্যার খেতে শুরু করলেন।
আমি তো ভুলেই গিয়েছিলাম যে এইটা স্যারের খাবার! আর আমি সব খেয়েই যাচ্ছি।
আমি কাদো কাদো গলায় বললাম..
" স্যার? আম সরি আপনাকে জিজ্ঞেস করতে ভুলে গেছি।
আমি চামিচ দিয়ে খাচ্ছিলাম খাবার নষ্ট হয় নি। আপনি কি খাবেন?
কথাটা বলেই বেয়াক্কাল হয়ে গেলাম। আমার ছানা খাবার স্যারকে জিজ্ঞেস করলাম।
মাথা নিচু করে আবারো খাচ্ছি। হঠাৎ স্যারের কথায় স্যারের দিক তাকালাম...
" লাষ্টে কিছু খাবার রেখে দিয়ো।
আমি মাথা নাড়ালাম। কিছু খাবার কি ফালানোর জন্য রাখবো।
আজিব? আমি কিছু খাবার রেখে দিলাম। আহ পেট ভড়ে গেছে?
" স্যার হয়েছে।
" পেট ভরছে..?
" জি।

" যাও দেড়ি হচ্ছে ক্লাসের জন্য।
" স্যার আসসালামুয়ালাইকুম।
আমি দিলাম দৌড়। আশেপাশে না দেখেই দৌড়িয়ে যাচ্ছিলাম হঠাৎ টিফিন বক্সের
কথা মনে পড়তেই আবার অফিস রূমের দিক যাবো, তখনি জানালায় চোখ
পড়তেই দেখলাম স্যার বিরিয়ানী খাচ্ছেন। তাও সেম চামিচ আর সেম বাটি যেভাবে রেখে আসছিলাম।
স্যার চোখ বুঝে খাচ্ছেন। আমার কষ্ট লাগলো অনেক। মে বি স্যারের প্রচন্ড ক্ষুদা পেয়েছিলো।
আর আমি সব খেয়ে ছাবার করে দিলাম।
ক্লাসে চলে এলাম। ৩ টা ক্লাস করে লাষ্ট ক্লাস ছিলো তৃষ্ণা স্যারের।
আমি আর হাসান ড্রইং করছিলাম তখনি স্যার প্রবেশ করলেন।
দাড়িয়ে সালাম জানালাম? স্যার বসতে বললেন।
বসেও আমার শরীর থেকে ঘাম ঝড়ছে। আজ আমি পড়া পারি না! সাথে হোমওয়ার্ক ও করি নি।
পড়া না পারলে হোমওয়ার্ক কিভাবে করবো। ক্যাপ্টেন খাতা উঠানো শুরু করেছে।
আমার রোল ৪, সেই হিসেবে পড়া না পারলে, অনেক হ্যানোস্তা হতে হয়।
খাতা উঠানোর সময় আমার খাতা না থাকায় দাড়াতে হয়েছে। হাসান বসে ছিলো ও খাতা এনেছে। এদিক_ওদিক তাকাচ্ছি দেখলাম মাত্র ৫ জন দাড়িয়েছে।
প্রচন্ড ভয় করছে। স্যার খাতা চেক করে প্রথম ব্যাঞ্চ থেকে পড়া ধরা শুরু করলেন।
পড়া না পাড়ায় ৫ টা দু'হাতে বাড়ি দিচ্ছেন কাঠের স্কিল দিয়ে।
লাষ্ট বেচে আসতেই বলে উঠলেন....
" খাতা আনো নি কেন?
" স্যার পড়া...

আমাকে বলতে না দিয়ে স্যার বলে উঠলেন...
" নো এক্সকিউজ... হাত পাতো?
আমি চোখ বন্ধ করে দু হাত এগিয়ে দিতেই টাস, টাস আওয়াজ এলো পাচটা।
তখন মনে হচ্ছিলো হাত দিয়ে রক্ত বেড়চ্ছে।
আমি আর স্যারর দিক তাকাই নি। নিচে তাকিয়েই রয়েছি...
" পড়া বলো...?
আমি চোখ_মুখ খিচে মাথা নাড়িয়ে বললাম...
" পারি নাহ...!
বলেই হাত পেতে দিলাম। চোখ ভিতরে ঢুকিয়ে ঠোট চেপে ধড়েছি।
এভাবেই হাত জলে যাচ্ছে এখানে আবার মাড়লে আমি আজ মড়েই যাবো...!
তখনি আরো ৫ টাহ দু ' হাতে পড়লো। মনে হচ্ছিলো কেউ কাটা যায়গায় লবন ছিটিয়ে দিয়েছে!
চোখে পানি টপ টপ করে ঝড়ছে!

" বসো...! কাল থেকে জেনো পড়া আর হাতের লেখা মিস না হয়।
আমি মাথা নাড়াতেই স্যার অন্যসাইডে গেলেন।
আর আমি হাসানের দিক ঘুরে লুকিয়ে ফুপিয়ে কেদে উঠলাম।
বড্ড ব্যাথা করছে। হাসান আমার চোখ পুছিয়ে দিচ্ছে আর বলছে...
" কাদিস না বেলি...
আমার তো জান বেড়িয়ে যাচ্ছে ব্যাথায়। বোতল খুলে হাতে পানি দিলো হাসান।
আমার ব্যাথা মনে হচ্ছে আরো বাড়ছে। লাল লাল হয়ে আছে যেই প্লেসে স্কেল লেগেছে!
আমি ভালো ভাবে চোখ মুখ মুছে নিলাম।
স্যার পড়াতে শুরু করলেন আর আমি বুঝার চেষ্টা করে যাচ্ছিলাম।
স্যারের ক্লাস লাষ্ট ছিলো ঘন্টা দিতেই ব্যাগ গুছানো শুরু করলাম।
বাট হাতের ব্যাথায় বই গুলিও ধরতে পারছিলাম না!
হাসান আমার ব্যাগ গুছিয়ে কাধে দিয়ে দিলো! এখনও চোখ মুখ ফুলা!

আমি হাসান কথা বলতে বলতে বেড়িয়ে আসলাম।
গেট দিয়ে বেড়িয়ে আসবো তখনি স্যারের আওয়াজ পেলাম।
আমি ঘুড়ে দাড়ালাম বাট তার দিক তাকাই নি। সালাম দিয়ে মাথা নিচু করে রাখলাম।
বড্ড অভিমান লাগছিলো জানি না কেনো? বাট তিব্র কষ্ট হচ্ছিলো।
হাত গুলি এখনো জলছে। সবাইকে মেড়েছে কেউ কাদে নি কিন্তু আমি কেদেছি
কারন আমায় অনেক জড়ে মেরেছে। আওয়াজ ও অনেক হয়েছিলো।
এভাবে স্যার কখনও মাড়েন নি! আজ মেড়েছেন তাও এতো?

" টিফিন বক্স নাও...
আমি হাত পেতে দিলাম বক্স দেওয়ার জন্য। বাট স্যার দিচ্ছিলেন না।
মে বি আমার হাতের দিক তাকিয়ে ছিলেন..? স্যার দিচ্ছিলেন না দেখে আমি বললাম...
" স্যার... বক্স?
স্যার কিছুক্ষণ দাড়িয়ে থেকে হাসানের হাতে বক্স দিয়ে চলে যাচ্ছেন।
আমি তো হাত পেতে রেখেছিলাম। হাসান বলল...
" দে ব্যাগে ঢুকিয়ে দি। আর শুন বাসায় গিয়ে হাতে বরফ লাগাস।
দেখ লাল লাল হয়ে আছে। আর হাতটা ফুলেও গেছে অনেকখানি।
ব্যাথাটা মনে হতেই তীব্র কষ্ট হচ্ছে! হাটতে হাটতে চলে এলাম বাসায়...

মা আমি এসে পড়েছি...?
মা রান্নাঘর থেকে জবাব দিলেন....
" রূমে গিয়ে কাপড় চেঞ্জ করে গোসল করে নে।
" জি।
আমি রুমে গিয়ে ব্যাগটা রেখেই বিছানায় গা এলিয়ে দিলাম।
চোখ বুঝতেই সেই ভয়াবহ দৃষ্য... ঠাস, ঠাস বাড়ী গুলি।
স্যারের পড়া না পারলে আমি আর কখনো স্কুলে পা রাখবো না।
গোসল করে নিলাম। হাতটা জলছে এখনো। পানি ধরায় আরো তিব্র হয়েছে ব্যাথাটা।
দুপুরের খাবার মায়ের হাতেই খেলাম। নিজের হাত আর দেখায়নি।
ঘুম দিলাম চোখ খুলতেই দেখলাম পাশে আম্মু_আব্বু আর ডাক্তার আংকেল!
আমাকে জাগতে দেখেই আম্মু বকাবকি শুরু করে দিলো!
" গায়ে এতো জর কিভাবে আসলো? হুহ?
দদেখতো মুখের কি অবস্থা হয়েছে! আর এই হাতের অবস্থা এমন কেন? কি হয়েছে হাতে?

আমি আর কিছুই বললাম না! প্রচন্ড খারাপ লাগছিলো! রাত ৮ টা বাজতে চলল!
এতোগুলো ঔষধ খেয়ে আবার ঘুমানোর চেষ্টা করতে লাগলাম! বাবা আমার হাত ধরে বসে আছেন!
সকালে আর স্কুল গেলাম না! ব্যাথাটা তীব্র হওয়ায় রাত্রে প্রচন্ড জড় এসেছিলো!
এখন অনেকটা ভালোই লাগছে! বাট অতোটা না!
কেমন মাথাটা ভাড়ি ভাড়ি লাগছে! ১২ টার দিক মা চিল্লাতে শুরু করলো..

" বেলি, বেলি! তোর টিচার আসবে তোকে দেখতে!
কথাটা শুনতেই আমি লাফ দিয়ে বাহিরে আসলাম!
" কে আসবে মা?
" তৃষ্ণা স্যার আসবে!
" মা! স্যারও আসলে তুমি খাইয়ে পাঠিয়ে দিয়ো! আমার শরীর একদম ভালো লাগছে না! ঘুমুবো!
কথাটা বলেই ঘুমুতে চলে গেলাম! কম্বল মুড়ি দিয়ে ঘুমিয়ে পরেছি!
মা অনেকবার ডেকেছেন! বাবাও ডেকেছেন, কিন্তু আমি ঘুমিয়েই ছিলাম!

সকালে উঠতেই মা বলল..
" স্কুল যাবি?
" নাহ মা! কাল থেকে যাবো!
ফ্রেস হয়ে ছাদে অনেক্ষণ ঘুরলাম! এখন অনেকটা ভালো লাগছে!
শরীরের কৌতুহলটা আর নেই!
শুনেছিলাম মা য়ের থেকে স্যার আমাকে একবার দেখার কথা অনেকবার বলেছেন!
হাতটা এখনও কেমন জানো দেখাচ্ছে!

চলবে....

No comments