Breaking News

কাস্টমার কেয়ার সার্ভিস এর মেয়ের সাথে প্রেম । পর্ব- ০২

সারাদিন ঘুরাঘুরির পর রাত্রিবেলা কল দিলাম, – হ্যালো?(আমি)
– স্যার একটা কথা বলবো?(নিলিমা)
– হুম বলেন আপনি তো কোনো কিছু
জিজ্ঞেস ই করেন না।(আমি)
– স্যার প্রতিদিন কল দিয়ে আপনি
কি লাভ পান শুধু শুধু টাকা নষ্ট?
(নিলিমা)
– আরে এতো তো আপনাদেরই লাভ।
যত কথা বলবো ততো টাকা।(আমি)
– হুমম কিন্তু আমাকেই কেনো? অন্য
কারো সাথেও তো কথা বলতে
পারেন।(নিলিমা)
– কারন আমিযে আপনার মিষ্টি
কন্ঠের প্রেমে পড়ে গেছি?(আসি)
– হইছে আর বলা লাগবো না।
(নিলিমা)
তারপর আরো কিছুক্ষন কথা বলার পর
ফোনটা কেটে দিলো।
.
আমি খুশি মনে ঘুমিয়ে গেলাম। ওর
সাথে কথা বললে এতো ভালো
লাগে কেনো বুঝিনা।
এভাবে দুষ্টামি করতে করতে কেটে
গেলো ১ মাস।
আমি প্রতিদিনই কল দিয়ে কথা
বলি।
ওর সাথে কথা না বললে ভালো
লাগেনা।
আমি বুঝতে পারতাছি। টাইমপাস
করতে করতে আমি সত্তি সত্তি ওকে
ভালোবেসে ফেলছি।
আর এইটাও বুঝতে পারতাছি ওকে
ছাড়া
আমি অসম্পুর্ন। জানিনা ও আমাকে
কি ভাবে তবে আমি ওকে নিজের
চাইতেও বেশি কিছু ভাবি।
,
আজকে রাতেও কল দিলাম,
– হ্যালো?(আমি)
– আচ্ছা আপনি কি পাগল নাকি?
(নিলিমা)
– কেনো আপনার কি মনে হয়।(আমি)
– আমার তো মনে হয় আপনার
মাথাটা পুরাই গেছে।(নিলিমা)
– তাহলে হয়তো গেছে।(আমি)
– হুমম।(নিলিমা)
– একটা কথা বলি??(আমি)
– হুমম বলেন?(নিলিমা)
– আমাকে তুমি করে বলবেন ।আর
আমি কি আপনাকে তুমি বলতে
পারি?(আমি)
– আপনি বলতেই পারেন কিন্তু আমি
বলতে পারবো না আমার সমস্যা
হবে।(নিলিমা)
– আচ্ছা ঠিক আছে সমস্যা হলে
দরকার নাই।(আমি)
– হুম ধন্যবাদ।(নিলিমা)
– আচ্ছা আপনি খাইছেন কিছু।(আমি)
– না আর একটু পর বাসায় গিয়ে
তারপর খাবো। আপনি খাইছেন?
(নিলিমা)
– না একটু পর।(আমি)
– আচ্ছা খেয়ে নিবেন।(নিলিমা)
.
ফোনটা আবারো কেটে গেলো।
আমি আর কল দিলাম না।
ঘুমিয়ে গেলাম।
সকাল বেলা ঘুম থেকে উঠে ফ্রেস
হয়ে বাইরে গেলাম।
একটু ঘুরাঘুরি করার জন্য। কিছুদুর
হাটার পর হঠাৎ করে একটা মেয়ের
দিকে চোখ পড়লো।
এতো সুন্দর মেয়েটা যে না
তাকিয়ে পারলাম না।
কিন্তু নিজেকে সংযত করলাম কারন
আমি নিলিমাকে ভালোবাসি।
অন্য কোনো মেয়েকে বাসা সম্ভব
না।
হয়তো নিলিমার চাইতে মেয়েটা
সুন্দর কিন্তু আমার মনে তো ওই
একজনই আছে।
.
আমি বাসায় চলে আসলাম।
আমার আবার অভ্যাস আছে
প্রতিদিন সকালে 10 টার দিকে চা
খাওয়া।
তাই সেদিন ও গেলাম গিয়ে দেখি
ওই মেয়েটা কোথায় যেনো
যাইতাছে।
আমার চাইতে বয়স কম তবে দেখে
মনে হলো কোথাও জব করে।
সে যাই হোক আমার তাতে কিছু
আসে যায় না।
,
রাতে কল দিলাম,
– হ্যালো?(আমি)
– হুম।(নিলিমা)
– আচ্ছা আপনার ঠিকানাটা দেওয়া
যাবে?(আমি)
– আমাকে কি পাগল মনে হয় আমি
আপনাকে ঠিকানা দেই আর আপনি
আমার বাসায় চলে আসেন?
(নিলিমা)
– ওহ দিবেন না??(আমি)
– নাহ। এমনিতেও বাসা চেন্জ করছি
কালকে।(নিলিমা)
– ওহ ভালো।(আমি)
– হুমম।
তারপর অনেকক্ষণ কথা বলার পর
ফোনটা কেটে দিলাম।
এভাবে কেটে গেলো আরো
কয়েকটা মাস।
ওর সাথে প্রতিদিনই কথা বলি।
নাম্বার অথবা ঠিকানা
কোনোটাই জানিনা। আর জানবো
কেমন করে বলে
নাতো কখনো।কত জিজ্ঞেস করছি।
মাঝে মাঝে মনে হয় আমি ওকে
বিরক্ত করছি নাতো।
আর ও কাজ ফেলে আমার সাথেই বা
কথা বলে কেমন করে?
.
এদিকে এই মেয়েটাকে দেখি
প্রতিদিন সকালে কোথায় যেনো
যায়। আমার জানার আগ্রহ নাই তাই
জানিনা।
কারন আমি তো অন্যকাউকে
ভালোবাসি।
মেয়েটার সাথে দুদিন
চোখাচোখি হইছে তবে কথা বলা
হয়নাই এখনো।
.
এভাবে আরো কিছুদিন যাওয়ার পর
ভাবলাম অনেক হইছে এবার
প্রোপোস করে ফেলি।
যেহেতু ও আমার সাথে দেখা করবে
না তাই ফোনেই বলতে হবে।
তো একদিন রাত্রিবেলা ফোন
দিলাম,
– আমি তোমাকে কিছু কথা বলতে
চাই।(আমি)
– সেতো প্রতিদিন অনেক কথাই
বলেন?(নিলিমা)
– হুমম তবে আজকের গুলা ইম্পরট্যান্ট।
(আমি)
– আচ্ছা বলুন।(নিলিমা)
– আমি জানিনা কথাগুলা তুমি
কিভাবে নিবা তবে আজকে যে
কথাগুলো বলবো আমি তার সবগুলাই
সত্য।(আমি)
– হুমম বলেন?(নিলিমা)
– তোমার আমার পরিচয়টা
যেভাবেই হোক তোমার সাথে
কথা বলতে বলতে আমি তোমাকে
ভালোবেসে ফেলেছি। সত্তি
এতটুকুও মিথ্যা বলতাছি না আমি।
তোমাকে ছাড়া আমি থাকতে
পারবো না প্লিজ তুমি তোমার
মতামত টা জানাও।(আমি)
– ওপাশ থেকে ফোনটা কেটে
দেওয়ার শব্দ শোনা গেলো।
তারপর অনেকবার ট্রাই করলাম
কিন্তু পারলাম না।
বারবার ফোনটা কেটে যাইতাছে।
রিসিভ হইতাছে না।তবে কি ও
আমাকে ভালোবাসে না??
এইসব ভাবতে ভাবতে ঘুমিয়ো
গেলাম।
পরের দিন রাতে কল দিলাম,
কিন্তু নিলিমা নাই। অন্যরা কল
ধরতাছে।
নিলিমাকে পাইতাছি না
অন্যরকম একটা অনুভুতি কাজ করতাছে
মনে হচ্ছে কি যেনো হারিয়ে ফেললাম,
চলবে.???

No comments