Breaking News

রাগী বউ | পর্ব-০৫

আমিঃ  এই তোমাকে সেই কখন শাড়ি পরিয়ে দিয়েছি। এখনো কি করছো? তোমার রেডি হতে এত টাইম লাগে কেন?? আসলেই মেয়েদের এত টাইম লাগে না রেডি হতে বলার মত না. অসহ্য সব…

রাইসাঃ  আরে দাঁড়াও দাঁড়াও হইছে,,,,
আমিঃ  10 মিনিট হয়ে গেছে এখনো তোমার কোন খবর নাই কি হইছে তাড়াতাড়ি আসো তো,,,,
রাইসাঃ  হেরে বাবা হইছে চলো এখন এত তাড়াহুড়া করো না তুমি,,,
 আমি আর রাইসা গাড়িতে  উঠলাম। তারপর আমরা প্রথমে শপিং গেলাম। স্ গিয়ে কিছু জিনিসপাতি কিনলাম। ওর জন্য একটি শাড়ি আর আমার জন্য একটি সার্ট কিনলাম।ও সার্টটা চয়েস করে দিয়েছে আর আমি ওর শাড়িটা পছন্দ করে দিয়েছি। তো শপিং করে পার্কে গেলাম সন্ধ্যার আগে আগে।
 সেখানে যাওয়ার পর দেখলাম একজোড়া কাপেল হাত ধরে হাটতেছে। রাইসা  আমার দিকে আড় চোখে তাকালো আমি ওর দিকে তাকালাম। তারপর দুজনেই একটু হাসলাম তারপর আমি ওর হাত ধরতে চাইলাম ও হাত রাড়িয়ে দিলো। তারপর আমরা একসাথে একটু হাঁটলাম এক জায়গায় বসে কথা বলতেছিলাম। ওকে আমি জড়িয়ে ধরে বসে ছিলাম।
রাইসাঃ  হেই খুব ক্ষুদা লেগেছে কিছু খাবো না,,,,
আমিঃ  খাওয়ার মত তো কিছু দেখতেছি না ওই যে ফুচকা আছে ফুচকা খাবা,,,,
রাইসাঃ  আচ্ছা এখন ফুচকা খাবো। তবে একটা শর্ত আছে ?রাতে আমার জন্য চকলেট আর আইসক্রিম নিতে হবে? রাজি আছো??
আমিঃ  আচ্ছা বাবা খাওয়াবো ?কোন সমস্যা নাই? আমি তো এমনিতেই তোমার জন্য প্রতিদিন আইসক্রিম আর চকলেট নিয়ে যাই?
 ওইগুলো না নিলে তো আমাকে একজনের ঘরে ঢুকতে দেয় না,,?☺
রাইসাঃ  হ্যাঁ বুঝছি বুঝছি তুমি কাকে বলছো,,,? আচ্ছা ঠিক আছে এখন তাহলে ফুচকা খাই চলো?
আমিঃ  মামা ফুচকা দাও তো দুই বাটি,,,
দোকানদার মামাঃ  হ্যাঁ হ্যাঁ বসেন আপনারা দিচ্ছি আমি,,,
আমিঃ  হ্যাঁ মামা ঝাল দিবেন সেই  যাতে আমরা কান্না করে দি,,,? এত ঝাল দিবেন?
দোকানদার মামাঃ  আচ্ছা তাহলে দুইটা বোম্বাই মরিচ দেই কি বলেন,,,
আমিঃ  হ্যাঁ দেন,,,,
 একটু পরে আমাদের ফুচকা দেওয়া হলো। আমরা দুইটা দুইটা ফুচকা খেলাম। খাবার পরে যা হলো তা বলার মত না।রাইসা  আমার দিকে তাকাচ্ছে, আমি ওর দিকে তাকাচ্ছি ?আমাদের চোখ মুখ লাল হয়ে গেছে তাহলে বুঝতেই পারছেন কি অবস্থা হয়েছে আমাদের? আমি কিছু বলতে পারছি না রাইসা ও কিছু বলতে পারছেনা? আমি দেখলাম রাইস আর চোখ দিয়ে পানি পড়ছে?? আমি বুঝতে পেরেছি ওর খুব ঝাল লেগেছে তাই ও আমার কাছে বলল আচ্ছা পানি আছে?
 আমি বললাম কেন,?  অনেক ঝাল,,? একটা কিস করি
না এসব কি বলছ তুমি।
 আরে একটা
না না আমার খুব ঝাল লেগেছে পানি দাও প্লিজ
 তারপর আমি পানি আনলাম ওর কাছে দিলাম পানি গুলো খেলো তারপর দেখলাম ওর চোখ মুখ লাল হয়ে গেছে তাই বললাম চলো চলো তোমার অনেক ঝাল লেগেছে আমার দিকে তাকিয়ে বলল এই তোমার ও ঝাল লেগেছে আমি জানি?
আমিঃ  আমার তো অনেক ঝাল লেগেছে ইচ্ছে করছে একটা কিস করি কিভাবে বলবো তোমাকে(মনে মনে)
রাইসাঃ  কিছু বললা,,,?
আমিঃ  আচ্ছা রাইসা একটা কথা বলি,,? আমি কি তোমাকে একটা কিস করবো খুব ঝাল লাগছে আমার,,,?
রাইসাঃ  এই তুমি কি পাগল হয়ে গেলা এই লোকাল পেলে যে তুমি কি বলতেছ এসব? রাতে দিব,,,,?
 এই রাইসা অনেক সময় হয়ে গেছে রাত দশটায় বের হয়েছে এল চলো এখন বাসায় যাই না হলে আম্মু রাগারাগি করবে,,,,!!
রাইসাঃ হুম  চলো,,,
 কথা বলতে বলতে বাসায় চলে আসলাম তারপর বাসায় ঢুকলাম আম্মু বলল কিরে ঘুরাঘুরি কেমন করলি আমি বললাম হ্যাঁ মা ভালোই করছি তারপরে আমরা খেতে বসলাম খেয়েদেয়ে একসাথে রুমে আসলাম রাইসা আর আমি এখন রুমে তারপর রাইসা বললো এই তোমার আজকে ঝাল লাগছিলো তাইনা,, ?আমি বললাম হ্যাঁ একটু একটু লাগছিল ?তো আমার পাওনাটা এখন দেও,,,,?
রাইসাঃ  কিসের পাওনা আবার,,,
আমিঃ  আমার কিস দেও
রাইসাঃ  দিব না কি করবা,,,?
চলবে……………

No comments